গ্রীন লাইন বাস ঢাকা টু কক্সবাজার ভাড়া ও যাতায়াত সময় সূচি

দ্রুত গতিতে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে ভ্রমণের জন্য বাস যানবাহনের বিকল্প নেই। ভ্রমণের ক্ষেত্রে বাস পরিবহন সবার উপরে। বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরনের বাস রয়েছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে গ্রীন লাইন। এই বাসে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, রাজশাহী ও দিনাজপুর সহ আরও বিভিন্ন শহরে যাওয়া যাবে। আবার ঐ স্থান থেকে ঢাকাতে আসা যাবে। গ্রীন লাইন বাস ঢাকা টু কক্সবাজার ভাড়া নির্ধারন করে দিয়েছে।

এই পরিবহনে চলাচলের পূর্বে তাদের টিকিটের দাম ও যাত্রা সময় সূচি জানতে হবে। এছাড়া কিভাবে কক্স বাজার যাওয়ার জন্য গ্রীন বাসের টিকিট সংগ্রহ করবেন তা জানতে হবে। এই পোস্টে ঢাকা টু কক্স বাজার বাস ভাড়া কত, অনলাইন টিকিটের মূল্য ও যাতায়াত সময় সূচি শেয়ার করা হয়েছে। এছাড়া গ্রীন লাইন পরিবহনের কাস্টমার কেয়ার নাম্বার গুলো সংগ্রহ করে দেওয়া হয়েছে। এসি ও নন এসি বাসের ভাড়া জেনেনিন।

গ্রীন লাইন পরিবহন ঢাকা টু কক্সবাজার

শুধু গ্রীন লাইন নয় বাংলাদেশের আরও অনেক বাস আছে যার মাধ্যমে কক্স বাজার যাওয়া যাবে। তবে যারা সরাসরি কক্স বাজারে যেতে চান তারা গ্রীন লাইন পরিবহনের টিকিট সংগ্রহ করুন। এই বাসের মাধ্যমে ঢাকা শহর থেকে এক বাসে করেই কক্স বাজারের জন্য রওনা দিতে পারবেন। ঢাকা কাউন্টার থেকে বাস যাত্রা শুরু করবে এবং কক্স বাজার কাউন্টার এসে থেমে যাবে। আবার কক্স বাজার থেকে ঢাকার উদ্দেশ্য যাত্রা শুরু করবে। ঢাকা ও কক্স বাজারে তাদের টিকিট কাউন্টার আছে।

গ্রীন লাইন বাস ঢাকা টু কক্সবাজার ভাড়া

সময় বাঁচাতে ও খরচ কমাতে এক বাসেই যাতায়াত করা সুবিধা। এই সুবিধাটি উপভোগ করতে পারবেন গ্রীন লাইন পরিবহন থেকে। ঢাকা কাউন্টার থেকে প্রতিদিন কয়েকটি গ্রীন লাইন পরিবহনের বাস নির্ধারিত সময়ে কক্সবাজারের উদ্দেশ্য রুওনা দেয়। এদের এসি ও নন এসি বাস আছে। যার টিকিটের দাম আগে থেকে নির্ধারন করা। ঢাকা কাউন্তার বা কক্সবাজার কাউন্টার থেকে টিকিট গুলো ক্রয় করতে হবে। প্রতি জনের জন্য আলাদা আলাদা সিট ও টিকিট রয়েছে। অনলাইনেও বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে তাদের কগ্রিম টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। তবে অনলাইনে টিকিটের দাম একটু বেশি। গ্রীন লাইন বাস ঢাকা টু কক্সবাজার ভাড়া ৩০০ থেকে শুরু করে ২০০০ টাকা পর্যন্ত। তবে কক্স বাজারের জন্য আলাদা ভাবে নির্ধারিত করা।

এসি (ইকোনমি ক্লাস, বিজনেস ক্লাস, ডাবল ডেকার, স্লিপার কোচ) ভারাঃ

১। এসি (ইকোনমি ক্লাস) – ১,৫০০ টাকা
২। এসি (বিজনেস ক্লাস) – ২,০০০ টাকা
৩। এসি (ডাবল ডেকার) – ২,২০০ টাকা
৪। এসি (স্লিপার কোচ) – ২,৫০০ টাকা

গ্রীন লাইন বাস ঢাকা টু কক্সবাজার ভাড়া কত টাকা

এই বাসে করে এসি সার্ভিস পাবেন। যদি এসি সার্ভিস নিয়ে ঢাকা থেকে কক্সবাজার যেতে চান তাহলে এসি বাসের টিকিট ক্রয় করতে হবে। নন এসি বাসের যাত্রী ভাড়ার থেকে এসি বাসের যাত্রী ভাড়ার দাম অনেক বেশি। গ্রীনলাইন পরিবহন (স্লিপার) এসি বাসের ঢাকা টু কক্স বাজার সর্বনিম্ন ভাড়া ২৫০০ টাকা। কিছু কিছু সময় এই ভাড়া ২৭০০ থেকে ২৮০০ টাকা নেওয়া হয়। যদি অনলাইনে ঢাকা টু কক্স বাজার এসি বাসের টিকিট বুকিং করেন তাহলে প্রায় ৩০০০ টাকা লাগবে।

গ্রীনলাইন পরিবহন নন এসি বাস রয়েছে। এর থেকে কম খরচে যেতে চাইলে নন এসি বাসের টিকিট ক্রয় করতে পারেন। ১২৫০ টাকা থেকে ১৫০০ টাকা। অনলাইনে টিকিট বুকিং করলে প্রায় ১৬০০ টাকা। অনলাইন থেকে অগ্রিম টিকিট বুকিং করে রাখতে পারবেন। এছাড়া তাদের কাউন্টার নাম্বারে কল করে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন।

গ্রীন লাইন পরিবহন ঢাকা টু কক্সবাজার অনলাইন টিকিট

ডিজিটাল যুগে সব কাজ অনলাইনে করা হয়। গ্রীন লাইনের ক্ষেত্রেও তেমন। যাত্রীদের সেবা প্রদানের লক্ষে ঝামেলাবিহীন টিকিট সংগ্রহ করার জন্য অনলাইন টিকিট ব্যবস্থা চালু করেছে। বাংলাদেশের সকল ই-টিকিট সেবা কেন্দ্র থেকে গ্রীন লাইন পরিবহন ঢাকা টু কক্সবাজার অনলাইন টিকিট  সংগ্রহ করতে পারবেন। প্রয়োজনে এখান থেকে অগ্রিম টিকিট নেওয়া যাবে। অনলাইনে টিকিটের মূল্য এসি বাতাক৮০০ থেকে ৩০০০ টাকা এবং নন এসি বাস ১৭০০ থেকে ১৮০০ টাকা। greenlinebd.com থেকে অনলাইন টিকিট ক্রয় করতে পারবেন।

গ্রীন লাইন পরিবহন ঢাকা টু কক্সবাজার স্লিপার বাস ভাড়া

স্লিপার এটি এসি বাসের অন্তর্ভুক্তও। অনেকে স্লিপার বাসে যাতায়াত করতে চান। তাই যাতায়াতের পূর্বে এই বাসের ভাড়া কত টাকা তা জেনে নিতে হবে। এক এক বাসের স্লিপার বাস ভাড়া এক এক রকমের। গ্রীন লাইন পরিবহন ঢাকা টু কক্সবাজার স্লিপার বাস ভাড়া ২৫০০ টাকা। অনলাইনে ২৭০০ থেকে ২৮০০ টাকা নিবে এই বাসের যাত্রী ভাড়া।

গ্রীন লাইন বাস ঢাকা টু কক্সবাজার কাউন্টার নাম্বার

বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে গ্রীন লাইন বাসের কাউন্টার আছে। প্রতিটি কাউন্টার এর জন্য আলাদা আলাদা যোগাযোগ নাম্বার আছে। ঢাকা ও কক্স বাজারে গ্রীন লাইন পরিবহনের কয়েকটি টিকিট কাউন্টার আছে। এই কাউন্টার এর যোগাযোগের নাম্বার ও ঠিকানা নিচের অংশে সংগ্রহ করে দিয়েছি।

গ্রীন লাইন কাউন্টার নাম্বার ঢাকা

ঢাকা থেকে কক্সবাজার এর যাওয়ার জন্য ঢাকা কাউন্টা থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে হবে। ঢাকা জেলার বেশ কয়েকটি শাখা থেকে গ্রেন লাইন পরিবহনে যাওয়া যাবে। নিচে থেকে সকল শাখার কাউন্টার নাম্বার ও যোগাযোগের ঠিকানা দেখেনিন।

  • রাজারবাগ বাস কাউন্টার
    ঠিকানা: ঢাকা 1. কাউন্টার ঠিকানা: রাজারবাগ 9/2 আউটার সার্কুলার রোড, মোমেনবাগ, রাজারবাগ
    মোবাইল: ০২-৯৩৪২৫৮০, ০২-৯৩৩৯৬২৩
  • আরামবাগ বাস কাউন্টার নম্বর
    টেলিফোন:০২-৭১৯২৩
    মোবাইল: ০১৭৩০-০৬০০০৯
  • ফকিরাপুল বাস কাউন্টার নম্বর
    টেলিফোন: ০২-৭১৯১৯০০মোবাইল
    ০১৭৩০০৬০০১৩
  • কালা ব্যাগান বাস কাউন্টার নম্বর
    টেলিফোন: 02-9133145
    মোবাইলঃ 01730-060006
  • কল্যাণপুর খালেক পাম্প বাস কাউন্টার নম্বর
    টেলিফোনঃ 02-8032957
    মোবাইল:01730-060080
  • কল্যাণপুর সোহরাব বাস কাউন্টার নম্বর
    মোবাইল: 01730-060081
  • ত্তরা আজমপুর বাস কাউন্টার
    মোবাইল: 01970-060075
  • উত্তরা আবদুল্লাহপুর বাস কাউন্টার নম্বর
    মোবাইল: 01970-060076
  • বাড্ডা বাস কাউন্টার নম্বর
    মোবাইল: 01970-060074
  • NordA বাস কাউন্টার নম্বর
    মোবাইল: 01730-060098
  • বিআরটিসি আন্তর্জাতিক বাস কাউন্টার নম্বর
    মোবাইল: 01730-060060
  • গোলাপ বাগ বাস কাউন্টার নম্বর
    মোবাইল: 0447-8660011

গ্রীন লাইন কাউন্টার নাম্বার কক্সবাজার

কক্সবাজার থেকে সরাসরি ঢাকাতে আসতে পারবেন গ্রীন লাইন পরিবহনের মাধ্যমে। এজন্য কক্সবাজার কাউন্টার থেকে টিকিট ক্রয় করতে হবে। কক্স বাজারের বেশ কয়েকটি অঞ্চলের মধ্যে এদের ৩ টি কাউন্টার আছে।

  • কক্সবাজার বাস কাউন্টার
    01730-060074
  • কক্সবাজার জোতলা বাস কাউন্টার
    0341-62533, 01730-060070
  • কোলাতলী বাস কাউন্টার
    0341-63747, 01970-060070

গ্রীন লাইন পরিবহন ঢাকা টু কক্সবাজার যাতায়াত সময় সূচি

সব সময় এই বাস চলাচল করে। এছাড়া নির্ধারিত সময়ে কাউন্টার থেকে বাস ছেড়ে দেওয়া হয়। তো এজন্য নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই গ্রীন লাইন বাসের কাউন্টারে উপস্থিত থাকতে হবে। ভোঁর ৪ টা ৩০ মিনিটে বাস ছাড়া হবে এবং রাত ৮ টা ৩০ মিনিটে কাউণ্টার থেকে বাস ছেড়ে দিবে। এই সময়ের আগেই টিকিট সংগ্রহ করে বাস বসে যাবেন।

ঢাকা টু কক্সবাজার বাস ভাড়া

শুধু গ্রীন লাইন নয় আরও অনেক কোম্পানির বাস আছে যারা ঢাকা থেকে কক্স বাজার যাতায়াত করে। তাদের ক্ষেত্রে বাস ভাড়া ভিন্ন রকমের। নিচের অংশে অন্যান্য বাসের ঢাকা থেকে কক্স বাজার যেতে কত টাকা ভাড়া নিবে তা শেয়ার করা হয়েছে।

এসি বাসের ভাড়া
  • সোহাগ পরিবহন 1700 টাকা –
  • স্টার লাইন 1000 টাকা –
  • রয়েল কোচ 1500 টাকা 1700 টাকা
  • সেঁজুতি ট্রাভেলস 1200 টাকা (ইকোনো) 1600 টাকা (ব্যবসা)
  • মিয়ামি এয়ার কন 1050 টাকা (ইকোনো) 1350 টাকা (প্ল্যাটিনাম)
  • সৌদিয়া কোচ সার্ভিস 1000 টাকা –
  • দেশ ট্রাভেলস 1800 টাকা –
  • পরিবহন শিথিল করুন 1800 টাকা –
  • শ্যামলী পরিবহন (এসপি) 2000 টাকা –
  • শ্যামলী পরিবহন (এনআর) 1000 টাকা 1600 টাকা
  • এনা পরিবহন 1200 টাকা 1600 টাকা
  • ঈগল পরিবহন 1500 টাকা –
  • সেন্টমার্টিন পরিবহন 1500 টাকা –
  • সেন্ট মার্টিন হাইন্ডাই 1400 টাকা (ইকোনো) 1800 টাকা (ব্যবসা)
  • হানিফ এন্টারপ্রাইজ 2000 টাকা –
  • তুবা লাইন 2000 টাকা –
নন এসি বাসের ভাড়া 
  • শ্যামলী পরিবহন 800 টাকা
  • তুবা লাইন 800 টাকা
  • রয়েল কোচ 800 টাকা
  • সেঁজুতি ট্রাভেলস 800 টাকা
  • শ্যামলী পরিবহন (এনআর) 800 টাকা
  • এনা পরিবহন 800 টাকা
  • ঈগল পরিবহন 800 টাকা
  • সেন্টমার্টিন পরিবহন 900 টাকা
  • টিআর ট্রাভেলস 800 টাকা
  • সৌদিয়া কোচ সার্ভিস 800 টাকা
  • সৌদিয়া কোচ সার্ভিস 800 টাকা
  • অনন্য পরিষেবা 800 টাকা
  • এসআই এন্টারপ্রাইজ 800 টাকা
  • ইকোনো 800 টাকা
  • এস আলম পরিবহন 800 টাকা

ঢাকা থেকে কক্সবাজার কত কিলোমিটার

ঢাকা থেকে কক্সবাজার স্পথল পথ, আকাশ পথ ও জল পথে যাওয়া যাবে। এক এক পথে যেতে এক এক কিলো মিটার পথ অতিক্রম করতে হয়। তবে সড়ক পথে চট্টগ্রাম মহাসড়ক/N1 এবং চট্টগ্রাম – কক্সবাজার মহাসড়ক এর মোট দূরত্ব ৩৯৮.৫ কিলো মিটার। ঢাকা থেকে কক্সবাজার যেতে মোট ৭ ঘণ্টা ৫৬ মিনিট সময় লাগবে। রাস্তায় কিছুটা জ্যাম হলে ৮ ঘন্টার কেউ বেশি সময় লাগতে পারে।

শেষ কথা

বাসে চলাচলের পূর্বে এদের ভাড়া জেনে নিবেন। এর কারণ প্রতিটি বাসের জন্য আলাদা আলাদা ভাড়া নির্ধারন কোয়া থাকে। এছাড়া এসি ও নন এসি বাসের ভাড়া অনেক ব্যবধান রয়েছে। অনলাইনে গ্রীন লাইনের টিকিট ক্রয় করতে তাদের ওয়েবসাইটতে যাবেন। অগ্রিম টিকিটের জন্য এই পোস্টে দেওয়া কাউণ্টার নাম্বারে কল করে যোগাযোগ করবেন। গ্রীন লাইন বাস ঢাকা টু কক্সবাজার ভাড়া ও অনলাইন টিকিট মূল্য অবশ্যই জেনে যাতায়াত করবেন।

আরও দেখুনঃ

গ্রীন লাইন পরিবহন বাসের সকল কাউন্টার নাম্বার ও টিকিট মূল্য

গোল্ডেন লাইন পরিবহন সকল কাউন্টার নাম্বার ও ঠিকানা

এস আলম পরিবহন কাউন্টার নাম্বার ও যোগাযোগের ঠিকানা